ibtvusa@gmail.com

917-517-9777

যে কারনে সুইস ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিচ্ছেন বাংলাদেশিরা

যে কারনে সুইস ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিচ্ছেন বাংলাদেশিরা

আইবিটিভি নিউজ ডেস্ক     

 ২০২৩ সালে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের আমানতের পরিমাণ সাড়ে ৫ কোটি সুইস ফ্রাঁ থেকে কমে ১ কোটি ৮০ লাখ ফ্রাঁ হয়েছে। প্রতি ফ্রাঁ ১৩১ টাকা ধরলে যার পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ২৩৮ কোটি টাকা। মূলত দেশটির ব্যাংক গুলো থেকে এক বছরে বাংলাদেশিদের বিপুল পরিমাণ অর্থ তুলে নেওয়ার পরিমাণ নজিরবিহীন গতিতে বৃদ্ধি পাওয়ায় এমনটি ঘটেছে। সম্প্রতি সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক এসএনবি-এর প্রকাশিত বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

এদিকে, বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও নাগরিকের সুইস ব্যাংকে অর্থ আমানতের হার ২০২৩ সালে প্রায় ৭০ শতাংশ কমেছে। বিগত বছর গুলোর মধ্যে ভারতীয়দের আমানতের পরিমাণ সর্বনিম্নে পৌঁছেছে ২০২৩ সালে। কিন্তু আমানত কমে যাওয়ার পরও সুইস ব্যাংকে ভারতীয়দের অর্থের পরিমাণ ১ দশমিক ০৪ বিলিয়ন সুইস ফ্রাঁতে দাঁড়িয়েছে; যা ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৯ হাজার ৭৭১ কোটি রুপি।

এদিকে সুইস ব্যাংকে বিদেশি গ্রাহকদের অর্থ জমার তালিকায় ২৫৪ বিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ জমা রেখে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাজ্যের ব্রিটিশ নাগরিকরা। এরপরই ৭১ বিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ নিয়ে তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। আর ফ্রান্স রয়েছে এই তালিকার তৃতীয় স্থানে। সুইস ব্যাংকে দেশটির নাগরিকদের প্রায় ৬৪ বিলিয়ন ফ্রাঁ রয়েছে। এছাড়া তিন দেশের পর শীর্ষ দশ দেশের তালিকায় আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জার্মানি, হংকং, সিঙ্গাপুর, লুক্সেমবার্গ এবং গার্নসি।

মূলত দেশটির কঠোর গোপনীয় ব্যাংকিং নীতির কারণে সারা দুনিয়ার মানুষ নিজেদের বৈধ-অবৈধ পথে উপার্জিত অর্থ সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোতে জমা রাখেন। দেশটির আইনে গ্রাহকদের গোপনীয়তা দৃঢ়ভাবে রক্ষার নিয়ম থাকায় ব্যাংকগুলো কোনো পরিস্থিতিতেই গ্রাহকদের তথ্য কারও কাছে প্রকাশে বাধ্য নয়। ফলে কারা, কেন অথবা কীভাবে অর্থ ব্যাংকে রাখছেন, সে সম্পর্কে ব্যাংকগুলো কাউকে কোনো তথ্য দেয় না। কিন্তু সম্প্রতি গোপনীয়তা নিয়ে প্রশ্ন ও সমালোচনা দেখা দেওয়ায় গারহকেরা তাদের অর্থ সরিয়ে নিচ্ছেন।