ibtvusa@gmail.com

917-517-9777

নতুন অভিবাসন নীতি কাদের জন্য প্রযোজ্য

নতুন অভিবাসন নীতি কাদের জন্য প্রযোজ্য

আইবিটিভি নিউজ ডেস্ক     

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ইমিগ্রেশন বিষয়ে নতুন এক্সিকিউটিভ অর্ডার নিয়ে কথা বলেছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত আমেরিকান সুপ্রিম কোর্টের লাইসেন্সপ্রাপ্ত অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী।তিনি বলেন, অভিবাসীরা যেন কোন ধরনের প্রতারণার শিকার না হন এবং কেউ যেন এক্সিকিউটিভ অর্ডারের বিষয়টি সম্পর্কে কোন ধরনের ভুল না বোঝেন এজন্য তিনি বিষয়টি পরিষ্কার করেছেন।

অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী বলেন, অভিবাসীদের জন্য এক্সিকিউটিভ অর্ডারটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ এবং এই আদেশের দ্বারা অনেকে উপকৃত হবেন। তবে তার আগে বিষয়টি পরিষ্কার বুঝে নিতে হবে। তিনি বলেন, এক্সিকিউটিভ অর্ডারটিতে বৈধতার জন্য প্রথম যে শর্ত দেয়া হয়েছে সেটি হচ্ছে স্ট্যাটাস এডজাস্টমেন্ট বা বিয়ে করার মাধ্যমে যার জন্য গ্রিন কার্ডের এপ্লাই করা হয়েছে।

অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী বলেন, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ইমিগ্রেশন বিষয়ে নতুন এক্সিকিউটিভ অর্ডারে শুধুমাত্র বিয়ের মাধ্যমে নাগরিকত্বের বিষয়ে বলা হয়েছে, বিয়ে ছাড়া অন্য কোন বিষয়ে বলা হয়নি। যদি যুক্তরাষ্ট্রের কোন নাগরিক এদেশে বসবাস করা অন্য কাউকে বিয়ে করেন এবং যাকে বিয়ে করেছেন তিনি যদি ১৭ জুন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে গত ১০ বছর ধরে বসবাস করছেন তার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

তবে এ আবেদনের জন্য যেসব শর্ত দেয়া হয়েছে তার মধ্যে প্রথম শর্ত হচ্ছে যার জন্য আবেদন করা হয়েছে তাকে অবশ্যই ২০২৪ সালের ১৭ জুন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করেছেন এবং গত ১০ বছর ধরে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন, এই বিষয়টি নিশ্চি করতে হবে। এজন্য তাকে যথাযথ তথ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করতে হবে এবং সংশ্লিষ্ট সব ধরনের তথ্যপ্রমাণ দেখাতে হবে।

তিনি বলেন, গ্রিন কার্ডের আবেদনের জন্য অবশ্যই অবশ্যই এই বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে যে ২০২৪ সালের ১৭ জুনের মধ্যে যারা বিয়ে করেছেন এবং গত ১০ বছর যাবৎ যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন শুধু তারাই বৈধতার জন্য আবেদন করতে পারবেন।এটিই হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন বিষয়।

অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী বলেন, আগে যাদের নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করা হয়েছে, তাদের আবেদন যদি বর্তমানে পেন্ডিং থাকে তারা নতুন করে আগের আবেদনের ভিত্তিতে স্ট্যাটাস এডজাসমেন্টের আবেদন করতে পারবেন। আগের নিয়মে তাদেরকে আর তৃতীয় কোন দেশে গিয়ে অবস্থান বা ভিসার আবেদন করা লাগবে না।

এই নিয়মটা শুধু তাদের জন্য প্রযোজ্য যারা অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছেন অর্থ্যাৎ যাদের বর্ডার বা এয়ারপোর্টে কোন ধরনের ইন্সপেকশন হয়নি তারা আগের আবেদনকে নতুন করে উপস্থানপন করতে পারবেন।

তবে বিয়ের ক্ষেত্রে যেসব তথ্যপ্রমাণ লাগবে তারমধ্যে বিয়েটা বৈধ হতে হবে, বৈধ কাগজপত্র থাকতে হবে। বিয়ের পর যুক্তরাষ্ট্রে একসাথে বসবাসের বৈধ তথপ্রমাণ থাকতে হবে। এজন্য বাড়ি লিজ নেয়ার কাগজ, ইউটিলিটি বিলের কাগজ, একসাথে থাকা বা ঘোরাঘুরির করার বিষয়গুলো দিয়ে বৈধ বিয়ের বিষয়টির নিশ্চিত করতে হবে।

অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী বলেন, মোদ্দা কথা হচ্ছে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ইমিগ্রেশন বিষয়ে নতুন এক্সিকিউটিভ অর্ডারে শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করা অবৈধ অভিবাসীদের জন্য আবেদন করা যাবে যারা যুক্তরাষ্ট্রের কোন নাগরিককে বিয়ে করেছেন এবং তারা ১৭ জুন পর্যন্ত গত ১০ বছর যাবৎ যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। আর অন্য কোন ক্ষেত্রে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ইমিগ্রেশন বিষয়ে নতুন এক্সিকিউটিভ অর্ডার প্রযোজ্য না।